ভালুকায় মাহির হাসপাতালে অপারেশনে প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি:ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলা সদরে মাহির হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশন করার পর রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাকে চুরখাই কমিউনিটি বেজট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে, শুক্রবার সকালে রোখসানা খাতুন (৩০) নামে এক প্রসুতির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।
সূত্রে জানাযায়, গত মঙ্গলবার রাতে ভালুকা পৌরসভার পাঁচ রাস্তার মোড়ে অবস্থিত মাহির হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের জন্য উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের তালুটিয়া গ্রামের আলমগীর হোসেন তার স্ত্রী রোখসানা খাতুনকে ভর্তি করান। ডাক্তার আতিয়া বানু তার স্বামী অজ্ঞানের ডাক্তার ফুরকান আলীকে নিয়ে অপারেশন করেন।

এ সময় রোগীর রক্তের প্রয়োজন হলে হাসপাতালের লোকজন রক্তের ব্যবস্থা করেন। রোগিনীকে রক্ত ভরার সময় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে আশঙ্কা জনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। ওই হাসপাতালে সিট না হওয়ায় রোখসানাকে ময়মনসিংহের চুড়খাইয়ের কমিউনিটি বেজট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রোখসানাকে আইসিওতে রাখার পর শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান। রোখনার মৃত্যুর খবর পেয়ে মাহির হাসপাতালের মালিক জাকির হোসেন হাসপাতালে গিয়ে মৃতার অভিভাবককে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে হাসপাতাল থেকে নিজে লাশ বের করে তালুটিয়া গ্রামে নিয়ে যান।
সূত্র আরও জানায়, ডাঃ আতিয়া বানু বর্তমানে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে কর্মরত রয়েছে। আর তার স্বামী ডাঃ ফুরকান আলী ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত আছেন।

মাহির হাসপাতালের মালিক জাকির হোসেন জানান, অনেক গুলো অপারেশন করলে ২/১টি এমন ঘটনা ঘটতেই পাড়ে। আমি নিহতের পরিবারের জন্য যা করেছি তাতে তাদের কোনো অভিযোগ থাকার কথা নয়।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ মাহির হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও ডাক্তারের গাফিলতির কারনেই রোখসানার মৃত্যু হয়েছে।